Home মতামত জেনেটিকালি মডিফাইড, বাংলাদেশে জিএম ফুড প্রচলনের ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে

জেনেটিকালি মডিফাইড, বাংলাদেশে জিএম ফুড প্রচলনের ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে

2
0
Genetically Modified Food
Genetically Modified Food

Genetically Modified Food জেনেটিকালি মডিফাইড (জিএম) ফুড

Genetically Modified Food জেনেটিকালি মডিফাইড (জিএম) ফুড

বাংলাদেশে জিএম ফুড প্রচলনের ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে
মুহম্মদ আব্দুল জাব্বার

গোল্ডেন রাইস হচ্ছে বিটা ক্যারোটিনসমৃদ্ধ জৈব প্রযুক্তি প্রকৌশলের মাধ্যমে রূপান্তরিত ধান। এই ধানের সূত্রপাত হয় মূলত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ভিটামিন এ অভাবজনিত রাতকানা রোগ দমনে। একদশক ধরে গোল্ডেন রাইস নিয়ে চলছে নানামুখী তুমুল বিতর্ক। বিটা ক্যারোটিন শোষিত হয়ে শরীরে বিষাক্ততা সৃষ্টি করতে পারে। হজম প্রক্রিয়ায় বিটা ক্যারোটিন পরিবর্তিত হয়ে রেটিনল বা রেটিনোইক এসিডে রূপান্তরিত হতে পারে, যা চর্বি বা চষধংসধ-তে জমা হতে পারে কিন্তু এর প্রভাব বিষাক্ত এবং প্রজনন স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে। নিম্ন মাত্রায় ভিটামিন-এ স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় হলেও উচ্চ মাত্রায় ভিটামিন এ তলপেট, নাকে ব্যথা, বমি বমি ভাব এবং শিশুদের ঋড়হঃধহবষষব সৃষ্টি করতে পারে, অন্যদিকে দীর্ঘমেয়াদি বিষাক্ততা হাড় ও হাড়ের সংযোগস্থলগুলোর ব্যথা সৃষ্টি, চুল পড়া, শুষ্কতা জ্বর, ওজন হ্রাস, উচ্চ রক্তচাপ, ঠোঁটে ফাটলের মতো রোগ সৃষ্টি করতে পারে।
বাংলাদেশের সয়াবিন তেলের একটি বড় অংশ আমদানি করা হয় আমেরিকা, ব্রাজিল অথবা আর্জেন্টিনা থেকে। অথচ ওই সব দেশের সয়াবিন তেলের প্রায় সবটাই জিএমও বা জেনেটিক্যালি মোডিফাইড। জিএমও ফুডের অতিরিক্ত জিন দেহের পাকস্থলী কিংবা তন্ত্রের ওপর হজমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। বিশেষ করে জিএম ফুডে এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জিন অনুপ্রবেশ করালে দেহের এন্টিবডি বা উপকারী ব্যাকটেরিয়ার ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। জিএম খাদ্য খেলে প্রজনন ক্ষমতা হ্রাস, শিশুর জন্মগত ত্রুটি, কিডনিতে সমস্যা, যকৃতে সমস্যা, ক্যান্সার ইত্যাদি জটিল রোগ হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে- জিএম ফুডে ঢুকানো অন্যজীবের জিন মানুষের পাকস্থলী ও অন্ত্রে হজম হয় না। কখনো রক্তের মাধ্যমে জন্মগত ডিএনএ-এর সঙ্গে মিশে গিয়ে আচরণের পরিবর্তন আনে। এতে ক্যান্সারের ঝুঁকি ১০০ ভাগ বেড়ে যায়।